সিলেটে প্রথম সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে ঐক্যফ্রন্ট

প্রচ্ছদ

নিবার্চন সামনে রেখে সাত দফা দাবিতে জনমত গঠনে সিলেটে প্রথম সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে ড. কামালের নেতৃত্বে নবগঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। রাজধানীর উত্তরায় নিজ বাসায় আড়াই ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে বেলা আড়াইটায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব কমর্সূচি ঘোষণা করেন। ঘোষণা অনুযায়ী, ২৩ অক্টোবর হযরত শাহ জালাল ও হযরত শাহ পরানের মাজার জিয়ারতের পর সেখানে সিলেটে সমাবেশ করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বৈঠকে দুটি সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিয়ে রব সাংবাদিকদের বলেন, ‘একটি শরিকদের নিয়ে লিয়াজেঁা কমিটি গঠন। অপরটি হচ্ছে সমাবেশ, মহাসমাবেশ অনুষ্ঠান। তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, জনগণের অধিকার, কতৃর্ত্ব, জনগণের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য জনগণ ও ফ্রন্টের নেতাকমীের্দর উদ্দেশে আমরা প্রথম কমর্সূচি দিচ্ছিÑ আগামী ২৩ অক্টোবর সিলেটে প্রোগ্রাম হবে। এটি সমাবেশ-মহাসমাবেশ-গণসমাবেশ হবে। এর আগে অবশ্যই আমরা হযরত শাহ জালালের মাজার জিয়ারত করব।’ সিলেটের পর পযার্য়ক্রমে চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, রংপুরসহ বিভাগীয় শহর ও মহানগরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সমাবেশের কমর্সূচি পালন করবে বলে তিনি জানান। জেএসডি সভাপতি বলেন, ‘আগামী নিবার্চনকে সামনে রেখে আমরা যাতে শান্তিপূণর্ভাবে কমর্সূচি করতে পারি সেজন্য সরকার ও প্রশাসনের কাছে আমরা সহযোগিতা চাই।’ বুধবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক শেষে জোটের লিয়াজেঁা কমিটির নেতাদের নাম গণমাধ্যমে জানানো হবে বলে তিনি জানান। রবের বাসায় এই বৈঠক শুরুর হয় দুপুর ১২টায়। বৈঠক শুরুর দেড় ঘণ্টা পর যান তত্ত¡াবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। বিএনপির মহাসচিব মিজার্ ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চেয়ারপারসনের উপষ্টো কাউন্সিলের সদস্য মনিরুল হক চৌধুরী, জেএসডির সহ-সভাপতি তানিয়া রব, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের আহŸায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের কাযির্নবার্হী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। বিএনপিপন্থি পেশাজীবী নেতা ডা. জাফরুল্লাহ ও ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মো. মনসুরও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। গত ১৩ অক্টোবর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ৭ দফা ও ১১ দফা লক্ষ্য নিয়ে গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আত্মপ্রকাশ হয়। সরকারবিরোধী নতুন জোটে বিএনপি, জেএসডি, নাগরিক ঐক্য, গণফোরাম রয়েছে। মতভিন্নতার কারণে অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বিকল্পধারা এখানে নেই।