শেরপুরে নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ ডা. প্রিয়াংকার

জাতীয় রাজনীতি

শেরপুরের নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দেশের সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী ডা. সানসিলা জেবরিন প্রিয়াংকা।

শেরপুর-১ আসনে ধানের শীষের এ প্রার্থী বেলা সাড়ে ১১টার দিকে যুগান্তরের কাছে হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, নির্বাচন তো আমাদের এলাকায় শেষ। রাতেই ব্যালট বাক্স ভরে রাখা হয়েছে। সকালে বিভিন্ন স্থানে আমাদের এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়নি। অনেক জায়গায় (এজেন্ট) যারা ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করেছিল, পরে তাদেরও মারধর করে বের করে দেয়া হয়েছে।

ডা. প্রিয়াংকা আরও অভিযোগ করেন, এখন যেসব ভোটার ভোট দিতে যাচ্ছেন, তাদের বলা হচ্ছে ব্যালট পেপার শেষ। তিনি জানান, শেরপুরের তিনটি আসনেই একই চিত্র।

আপনারা ভোট বর্জন করবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ডা. সানসিলা জেবরিন প্রিয়াংকা বলেন, যা হওয়ার তা তো হয়ে গেছে। নৌকায় তো সব নিয়ে গেল। এখানে যেহেতু ভোটাররাই ভোট দিতে পারছে না, সেখানে আমাদের আর কী সম্ভাবনা আছে? তার পরও এখনও বর্জন করছি না- কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছি।

এর আগে সকালে (রোববার) ৮টা ২৭ মিনিটে জেলার সদর থানায় দিশা প্রিপারেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ নিজের জীবনের প্রথম ভোট প্রদান করেন ডা. প্রিয়াংকা।

এ সময় তিনি অভিযোগ করে জানিয়েছিলেন, আসনের ১০০ ভোটকেন্দ্রে তার এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না, তাদের বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়া এক হাজার ৮৪৮ প্রার্থীর মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী ডা. প্রিয়াংকা।

‘৯৩ সালে জন্ম নেয়া ডা. প্রিয়াংকার বয়স এখন ২৫ বছরের কিছু বেশি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী হুইপ আতিকুর রহমান আতিকের সঙ্গে লড়ছেন।