ভিন্নতা

সাহিত্য ও দর্শন

পীড়িত ধুলোয় দাঁড়িয়ে বিকেলের পড়ন্তকে দেখি শুষে নিতে লিশির ম্রিয়মাণ ঝলকানো আভাকে।
লজ্জিত সন্ধ্যেটা অকপটে আঁধারের আঁচলে ঢেকে নেয় বেলাশেষের সমস্ত গ্লানিটুকু চতুর অভিনয়ে!…
আমি কানপেতে শুনি পৃথিবীর প্রতিটি চরিত্রের পালাবদলের ত্রস্ত পায়ের বেরসিক আওয়াজ।
সন্ধ্যের আরাধনায় ছুটতে দেখি কিছু বিশ্বাসীদের,
কিছুকে দেখি বাঁচার রসদ যোগানে নাভিশ্বাস,পকেটে রেখে বিশ্বাস!
আমি ধোঁয়াশা ধুলো ভেঙ্গে শহরবাঁধের কিনারে বসে চায়ের কাপে দাগ কেটে কেটে শুনি মারফতি চাচার ভ্রান্র স্তবক!
ক্ষুধার্ত কুকুরের আর্তনাদে মনে পড়ে অভুক্ত নিজেই!
একটি রুটি খেতে দিয়ে আমি বাতাসে বিষ উড়াই দীর্ঘশ্বাসে!
ওর সকৃতজ্ঞ চোখে মহামারীর বদলে দেখি স্রষ্টার ভরসা!
ছককাটা জীবনের লেনাদেনার শূন্যস্থানে আমি আগন্তুক রাতকে বসিয়ে এগিয়ে চলি মহাকালের অন্তরীক্ষে শুদ্ধতা খুঁজবো বলে!!….

কলমে….
হাসানুর রহমান