নাহিয়ানের আমন্ত্রণে ইমরান খান এই সফরে যান।

আন্তর্জাতিক

সংযুক্ত আরব আমিরাত পাকিস্তানকে ৬ বিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা দেয়ার জন্য প্রস্তুত এমন সংবাদের ভিত্তিতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান রোববার এক দিনের সফরে আবুধাবি গিয়েছেন।

বাদশার উত্তরসূরি ও আবুধাবির যুবরাজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ বিন সুলতান আল-নাহিয়ানের আমন্ত্রণে ইমরান খান এই সফরে যান।
রবিবার আবুধাবিতে রাষ্ট্রপতি প্রাসাদে ইমরান খানকে আনুষ্ঠানিক অভ্যর্থনা জানান যুবরাজ নাহিয়ান।

এরপর সেখানে অনুষ্ঠিত বৈঠকে দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও পারস্পরিক স্বার্থ নিয়ে আলোচনা করেন পাক প্রধানমন্ত্রী ও আমিরাতের যুবরাজ।

বৈঠকে ইমরান খানের সাথে ছিলেন পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী আসাদ ওমর, পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি এবং চীফ অব আর্মি স্টাফ জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া।

পাক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে শনিবার জানানো হয়, বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ও যুবরাজের মধ্যে দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক স্বার্থ নিয়ে আলোচনা হয়।

এই সফরে তিনি ইউএই’র উপ-রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ মুহম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুমের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন।
ধারণা করা হচ্ছে, সউদী আরবের মতো আমিরাতও ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সাহায্য দেবে।

যার মধ্যে ঋণ পরিশোধে সহযোগিতার জন্য ৩ বিলিয়ন ডলার এবং বাকি ৩ বিলিয়ন ডলার তেল আমদানিতে বিলম্বিত পরিশোধ সুবিধায় দেয়া হবে। সংযুক্ত আরব আমিরাত পাকিস্তানে প্রধান তেল সরবরাহকারী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম।

এদিকে, ঋণ সুবিধার জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাথে ইসলামাবাদের আলোচনা আগামী সপ্তাহে শেষ হবে, ২০ নভেম্বরের মধ্যে তাদের সাথে তহবিলের মৌলিক চুক্তিতে পৌঁছানো যাবে বলে পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী আসাদ উমর আশাবাদী।
এটি দুই মাসের মধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয় সফর। আবুধাবিতে তার শেষ সফরকালে গত ১৯ সেপ্টেম্বর উভয় দেশ তাদের অর্থনৈতিক, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্ককে শক্তিশালী করতে সম্মত হয়েছিল।

এরপরে আমিরাতের প্রতিনিধিদলের ইসলামাবাদ সফরকালে পাকিস্তান সরকার সহায়তা করার জন্য দেশটিকে আনুষ্ঠানিক অনুরোধ করেছিল। সংযুক্ত আরব আমিরাত এ বিষয়ে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছিল এবং পাক সরকারও তাদের কাছ থেকে ‘একটি ভাল প্যাকেজ’ পাওয়ার আশায় ছিল।

সূত্র: ডন।