ঢাকা-১৬তে বিএনপির প্রচারণায় এগিয়ে নয়ন বাঙ্গালী

জাতীয়

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৬ আসনে প্রচার-প্রচারণায় নেমেছেন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠক ও বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নয়ন বাঙ্গালী।

অবশ্য সেদিক থেকে ব্যতিক্রম বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী অ্যাডভোকেট নয়ন বাঙ্গালী।

কয়েকদিন ধরে বিএনপির কর্মী ও সমর্থকরা নয়ন বাঙ্গালীর পক্ষে পোস্টার ও ফেস্টুনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে তার মনোনয়ন চাইছেন। তারা প্রতিনিয়ত গণসংযোগ ও উঠোন বৈঠক করছেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির পাশাপাশি ধানের শীষে ভোট চাইছেন।

সরেজমিন ঢাকা-১৬ আসনের ২, ৩, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, অ্যাডভোকেট নয়ন বাঙ্গালীর পোস্টারে ছেয়ে গেছে মহল্লার অলিগলিসহ রাজপথ। বাসাবাড়ির দেয়াল, ল্যাম্পপোস্ট, বৈদ্যুতিক খুঁটি, গুরুত্বপূর্র্ণ রাস্তার মোড় ও বিভিন্ন স্থাপনায় শোভা পাচ্ছে পোস্টার-ফেস্টুন। এসব পোস্টারে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন চাইছেন অ্যাডভোকেট নয়ন বাঙ্গালী।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ২৩ ও ৫নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য বেগম মেহেরুন নেছা হক বলেন, ২০০৮ সালে নয়ন বাঙ্গালী বিএনপির প্রার্থী হিসেবে চেয়ারপারসনের মনোনয়ন বোর্ডে উপস্থিত হন।

এ সময় তৎকালীন মহাসচিব খন্দকার দেলোয়ার হোসেন তার প্রশংসা করেন ও খালেদা জিয়াকে অনেক বিষয়ে অবহিত করেন। ম্যাডাম তখন সবার সামনেই বলেন, এবার ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলামের জন্য কাজ করবে। আমি আগামীতে নয়ন বাঙ্গালিকে দেখব।

অ্যাডভোকেট নয়ন বাঙ্গালী বলেন, রাজনীতির মধ্যেই আমার বেড়ে ওঠা। আমার নাড়ির টান মিরপুরেই। আমি ছাত্রজীবন থেকেই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। অনেক মামলা হামলার শিকার হয়েছি। দলের দুঃসময়ে সব সময় সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছি, হাল ছাড়িনি।

দল যদি মূল্যায়ন করে তাহলে এলাকাবাসীর জন্য নিজেকে উৎসর্গ করব। অবশ্য খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া কোনো নির্বাচনে যাব না।