জীবিত খালেদা জিয়াকে বের করা নিয়ে শঙ্কায় স্বজনরা

জাতীয় রাজনীতি

দীর্ঘদিন ধরে কারাহেফাজতে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তার স্বজনরা। জীবিত অবস্থায় তাকে হাসপাতাল থেকে বের করা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তারা।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার সঙ্গে শনিবার সাক্ষাৎ করেন তার পরিবারের সদস্যরা। সেখান থেকে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ আশঙ্কার কথা বলেন বোন সেলিমা ইসলাম।

তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ‘প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টে’ ভুগছেন। তার শারীরিক যে অবস্থা, তাতে তাকে জীবিত অবস্থায় হাসপাতাল থেকে বের করা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। সরকারের উচিত তাকে মানবিক কারণে মুক্তি দেয়া।

সেলিমা ইসলাম জানান, শুক্রবার রাতে খালেদা জিয়ার পিঠে প্রচণ্ড ব্যথা হচ্ছিল, শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল এবং শ্বাস নিতে পারছিলেন না। তার বাম হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে, ডান হাতও বেঁকে যাচ্ছে। সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছেন না, খেতে পারছেন না। খেলে বমি হচ্ছে। তার শরীর খুবই নাজুক।

মানবিক বিবেচনায় খালেদা জিয়ার আবারও মুক্তির দাবি জানিয়ে সেলিমা ইসলাম বলেন, মানবিক কারণে তো খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়া উচিত। তিনি বলেন, তার যা শরীরের অবস্থা, এর পর তো তাকে জীবিত অবস্থায় আমরা এখান থেকে নিয়ে যেতে পারব কিনা, সেটিই আমাদের শঙ্কা। আমরা চাচ্ছি সরকার মানবিক দিকবিবেচনা করে অন্তত উনাকে মুক্তি দিক।

এর আগে শনিবার বেলা ৩টায় বিএসএমএমইউতে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে দেখতে যান সেজ বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, শামীম এস্কান্দারের স্ত্রী কানিজ ফাতেমা, ছেলে অভিক এস্কান্দার এবং সেলিমা ইসলামের মেয়ে সামিয়া ইসলাম।

দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছর দণ্ড নিয়ে দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে কারাবন্দি খালেদা জিয়া। দীর্ঘদিন পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে থেকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে গত বছরের ১ এপ্রিল তাক বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। এই হাসপাতালের কেবিন ব্লকের ৬২১ নম্বর কক্ষে বর্তমানে চিকিৎসাধীন তিনি।