ছাত্রলীগ নেতা সাকিবের উপর মর্মান্তিক হামলায় ৪ আসামী আটক

সারাদেশ

ডেস্ক নিউজ:
গত ৮/০৫/২০ ইং তারিখে নগরীর নোয়াববাড়ী চৌমুহনীতে কুমিল্লা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক,বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ নেতা সুলতান আহমেদ সাকিবের উপর একদল সন্ত্রাসী হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে। এসময় তার আত্নচিৎকারে এলাকাবাসীও তার বন্ধুরা এগিয়ে আসাতে সন্ত্রাসীরা মারাত্নকভাবে জখমবস্থায় তাকে ফেলে পালিয়ে যায়।এরপর তার বন্ধুরা তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং ডাক্তার জানান সাকিবকে মাথায়,পেটে,পিঠে,ঘাড়ের নিচে,পায়ের হাটুর উপরে এলোপাথারি কুপিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে জখম করে।তারপরদিন সাকিবের বাবা নিজে বাদী হয়ে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা করেন এবং কুমিল্লা সদর ৬ আসনের মাননীয় সাংসদ হাজী আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার এবং উনার মেয়ে তাহসীন বাহার সূচনা কুমিল্লার প্রশাসনকে নির্দেশ প্রদান করেন দ্রুত হামলাকারী সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনান জন্য। এর মধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই হামলা নিয়ে তীব্র প্রতিবাদের ঝড় উঠে এবং মহানগর ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কেন এই বিষয় নিয়ে চুপ এটা নিয়ে সবাই সমালোচনা শুরু করে। অনেকে আবার সমালোচনা করেন সন্ত্রাসীদের পৃষ্টপোষক নাকি তিনি নিজেই। এ সময় সন্ত্রাসীদের সাথে উনার অনেক ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয় তারপর অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্ন তুলে যে, ১৭ মামলার আসামী ছাত্রদলের সাবেক সাধারন সম্পাদকের পুত্রের সাথে মহানগর ছাত্রলীগের আহ্বায়কের কি সম্পর্ক?এমন আরো অনেক বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল সমালোচনা বিদ্যমান থাকে।
আজকে এই মামলার ৪ জন আসামী যথাক্রমে ১। মোঃ হাসিব, পিতা-আবুল কালাম আজাদ,সাং-মনোহরপুর,কোতয়ালী,কুমিল্লা, ২। আকাশ, পিতা- লিটন মিয়া,সাং উত্তর চর্থা, কোতয়ালী,কুমিল্লা। ৩। রিপন, পিতা-সোলাইমান মিয়া,সাং উত্তর চর্থা,কোতয়ালী,কুমিল্লা। ৪। সীমান্ত,পিতা- আবুল কালাম আজাদ, সাং-মনোহরপুর,কোতয়ালী,কুমিল্লাকে গ্রেপ্তারের পর কুমিল্লার ছাত্র সমাজ কিছুটা সস্থির নি:শ্বাস ফেললেও এরমধ্যেই আসামীদের রক্ষা করার জন্য মহানগর ছাত্রলীগের আহ্বায়ক থানায় গিয়ে আবারো ছাত্রসমাজের নিকট বিতর্ক সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।