কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ইউপি সদস্য রুবেল ষড়যন্ত্রের শিকার!

রাজনীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার উজিরপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেল নানা ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে কুমিল্লা কারাগারে জেলে রয়েছেন বলে  পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করছেন। সামুকসার কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি শাহিদা আক্তার বাদী হয়ে চৌদ্দগ্রাম থানায় নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করেন। দায়েরকৃত মামলার পরিপ্রেক্ষিতে উজিরপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেলকে ২ জুলাই চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ আটক করে আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কারাগারে প্রেরণ করেন। এদিকে ইউপি সদস্য ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেলের মামলার বিষয়ে তাহার স্ত্রী ফাতেমা আক্তার বলেন- প্রকৃত পক্ষে গত ৩০জুন সামুকসার কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে সিএইচসিপি শাহিদা আক্তারের সাথে সামুকসার গ্রামের জসিম মজুমদারের কথা কাটাকাটি হয়। সে সময় ইউপি সদস্য ইমাম হোসেন মজুমদার মিয়াবাজারে উজিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সাথে সরকারি ত্রাণ জণগণের মাঝে বিতরণ করছিলেন।  আমার স্বামী উজিরপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য  হওয়ার সুবাদে সামুকসারে অবস্থিত সামুকসার কমিউনিটি ক্লিনিকের নামে বরাদ্দকৃত সোলার ও ভ্যান গাড়ি ব্যবহার করার জন্য সিএইচসিপি শাহিদা আক্তারকে বেশ কয়েকবার নির্দেশ দেয়। মেম্বার ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেলের নির্দেশ সিএইচসিপি শাহিদা আক্তার না শুনে সরকারের বরাদ্দকৃত সোলার ও ভ্যানগাড়ি ব্যবহার না করে তাহার নিজ হেফাজতে রেখে দেয়। মূলত সরকারি সম্পদ সিএইচসিপি শাহিদা আক্তার আত্মসাৎ না করতে পাড়ায়  ক্ষুব্ধ হয়ে কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ২নং উজিরপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেলের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় নারী নির্যাতন মামলা দায়ের করেন। শাহিদা আক্তারের দায়েরকৃত মামলাটি ভিক্তিহীন বলে ইমাম হোসেন মজুমদারের স্ত্রী ফাতেমা আক্তার  তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

তিনি অবিলম্বে তার স্বামীর মুক্তি কামনা করেন।