অনলাইন বা সামাজিকমাধ্যমে দুই দলের বিরুদ্ধে কাদা ছোড়াছুড়ি চলছে।

জাতীয়

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে রাজনৈতিক দল বা প্রার্থীদের এখনো আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু হয়নি। কিন্তু অনলাইন বা সামাজিকমাধ্যমে দুই দলের বিরুদ্ধে কাদা ছোড়াছুড়ি চলছে।

প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিরুদ্ধে সামাজিকমাধ্যমে নানা ধরনের ভিন্ন ভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন প্রকাশ করা হচ্ছে। তবে এসব প্রচারণার সঙ্গে দুই রাজনৈতিক দলের কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছে সংশ্লিষ্টরা।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ভোটগ্রহণ আগামী ৩০ ডিসেম্বর।

এ উপলক্ষে প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন ৯ ডিসেম্বরের পর থেকে বা ভোটগ্রহণের ২১ দিন আগে থেকে।

কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারণার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো নিয়ম-কানুন না থাকায় এই প্ল্যাটফর্মটিকে ব্যবহার করে তুমুল পাল্টাপাল্টি প্রচারণা চলছে।

যার বেশির ভাগই চালানো হচ্ছে নেতিবাচক প্রচারণা।

আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নেতিবাচক প্রচারণার অংশ হিসেবে ‘অ্যা ডটারস টেল শেখ হাসিনা’কে নিয়ে তথ্যচিত্রটির একটি

ছবিজুড়ে দেয়া হয়েছে টেকনাফে নিহত কাউন্সিলর একরামুল হকের কন্যার বহুল প্রচারিত উক্তি, ‘আব্বু, তুকি কান্না করতেছ যে’।

আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে প্রচারণার জন্য আরেকটি পোস্টার সামাজিকমাধ্যমে ছড়ানো হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে ‘আদিবাসী সাঁওতালদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দখল করতে নৌকায় ভোট দিন’।

অন্যদিকে একটি পোস্টে বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনের সাম্প্রতিক সহিংসতার একটি ছবি সংযুক্ত করে সেখানে লেখা হয়েছে, ‘বিএনপির হামলা ছিল পূর্বপরিকল্পিত’।

ওই পোস্টারে বিএনপির এক নেত্রীর ছবিজুড়ে দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিপক্ষে কারা এসব প্রচারণা চালাচ্ছে, তা জানতে চাইলে দুই দলই অভিযোগ অস্বীকার করে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলছি যে, আমাদের কার্যক্রমের প্রতিফলন আওয়ামী লীগের ওয়েবসাইট ও ভেরিফায়েড ফেসবুক পাতায় রয়েছে।

আমরা নেতিবাচক প্রচারণায় বিশ্বাস করি না।

বিএনপি-জামায়াতের অপকর্ম জনগণকে স্মরণ করে দেয়া আমাদের রাজনৈতিক দায়িত্ব।

বিএনপি, খালেদা জিয়া বা ড. কামাল হোসেনকে আক্রমণ করে যেসব ফেসবুক পোস্ট দেখা যায় সেগুলো কারা করেছে? –

এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ তার বক্তব্য বা প্রচার ডিজিটাল পদ্ধতিতে যা করে, সেটি অফিসিয়াল পাতার মাধ্যমেই করে।

তাই এ নিয়ে বিভ্রান্তির কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে কারা প্রচারণা চালাচ্ছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক

শামা ওবায়েদ বলেন, একটা রাজনৈতিক বক্তব্য যেখানে ঠিকমতো দেয়া যায় না, সেখানে আমরা কী করে নেতিবাচক প্রচারণা

করব? তবে নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে তারা কী করবেন, সেটিই হবে ডিজিটাল প্রচারণায় আমাদের মূল

উপজীব্য বিষয়।